Saturday, 15 February 2020

সমগ্র বাংলাদেশ বগুড়ায় গৃহবধূকে ধর্ষণে স্বামীর সহযোগিতার অভিযোগ

তাকে বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
২৪ বছর বয়সী এই গৃহবধূ বগুড়া শহরের চকলোকমান এলাকায় ভাড়া বাড়িতে শিশুসন্তানকে নিয়ে থাকতেন। তার স্বামী সম্প্রতি তার সঙ্গে থাকতেন না।
গৃহবধূ বলেন, নয় বছর আগে বগুড়ার গাবতলি উপজেলার মালিয়ানডাঙ্গা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের পর তাদের বিয়ে হয়। সম্প্রতি রফিবকুল তাকে তালাক দেওয়ার জন্য চাপ দেন।
তার অভিযোগ, শনিবার দুপুরের দিকে রফিকুল ও তার এক বন্ধু এসে হঠাৎ করে তার হাত-মুখ বেঁধে মারধর করেন।
“এরপর রফিকুলের বন্ধু আমাকে ঘরের মধ্যে ধর্ষণ করে। আর রফিকুল ঘরের বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে দেয়।”
গৃহবধূ বলেন, “ধর্ষণের পর দুই বন্ধু আমার গায়ে ব্লেড দিয়ে কেটে আহত করে। একপর্যায়ে তারা আমার মাথার চুল কেটে দেয়। গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে আমার চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।
“এ সময় বাড়িতে আমি একা ছিলাম। আমার আট বছর বয়সী মেয়ে স্কুলে ছিল।”
শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি বিভাগের কর্মকর্তা হারুনুর রশিদ বলেন, তার গায়ে ধারালো অস্ত্রের তিন-চারটা আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এক জায়গায় পুড়ে গেছে। মাথার কয়েক জায়গায় চুল কাটা দেখা গেছে। তবে তিনি আশঙ্কামুক্ত। তাকে ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে রাখা হয়েছে। পরে তাকে গাইনি ওয়ার্ডে নেওয়া হবে।
এ বিষয়ে বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী বলেন, “ঘটনা একটি ঘটেছে এটা সত্য। ওই ঘটনার পেছনে কোনো ঘটনা আছে কিনা, স্বামী জড়িত কিনা কিংবা অন্য কেউ ঘটনার সাথে যুক্ত কিনা তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। অধিকতর তদন্ত ছাড়া এ মূহর্তে কিছু বলা যাচ্ছে না। কাল-পরশুর মধ্যে বিষয়টি পরিষ্কার করা সম্ভব হবে।”
শেয়ার করুন

0 coment rios: